মহাসত্য অমুসলিম মুসলিমদের অন্যান্য দল ও হানাফী (পর্ব-১)

মহাসত্য অমুসলিম মুসলিমদের অন্যান্য দল ও হানাফী (পর্ব-১)

মহাসত্য, অমুসলিম, মুসলিমদের অন্যান্য দল ও হানাফী (পর্ব-১)

সূরাঃ ৫৫ রাহমান, ২৬ নং ও ২৭ নং আয়াতের অনুবাদ-

২৬। তাতে যা কিছু আছে সমস্তই নশ্বর

২৭। অবিনশ্বর কেবল তোমার প্রতিপালকের সত্তা, যিনি মহিমাময়, মহানুভব

২৮। সুতরাং তোমরা উভয়ে তোমাদের প্রতিপালকের কোন অনুগ্রহ অস্বীকার করবে?

* আল্লাহ ছাড়া আর সব কিছুই নশ্বর। সেজন্য আল্লাহর সৃষ্টিকরা ছাড়া কিছুই হতে পারেনি। এটাই বাস্তব মহাপ্রকৃতি। আল্লাহ সৃষ্টি করলেন কেমন করে? সৃষ্টিকে স্বল্পমাত্রার অবিনশ্বর গুণ প্রদান করে তিনি সব কিছু সৃষ্টি করলেন। তার সৃষ্টির আগে সব কিছুতে অবিনশ্বর গুণছিল শূন্যমাত্রায়, সেজন্য সেগুলো আর হতেই পারেনি। সেজন্যই আল্লাহ একাই ছিলেন। আবার তিনি সব কিছুর অবিনশ্বরতা শূণ্য মাত্রার করে দিবেন। আর তাতেই সব কিছু আবার বিলিন হয়ে যাবে এবং আল্লাহ একাই বিদ্যমাণ থাকবেন। এরপর আবার অবিনশ্বরতা ফিরিয়ে দিয়ে তিনি তাঁর হারানো সৃষ্টিকে আবার ফিরিয়ে আনবেন। কেউ যদি বলে সৃষ্টিকরা ছাড়া আল্লাহ বিদ্যমাণ থাকতে পারলে, তিনি ছাড়া অন্যদের সৃষ্টি করার প্রয়োজন কেন হলো? এর সহজ উত্তর যোগ্যতা থাকা ও না থাকা। যোগ্যতার কারণে আল্লাহ বিদ্যমাণ ছিলেন, আছেন এবং থাকবেন। অযোগ্যতার কারণেই অন্যসব বিদ্যমান ছিল না। আল্লাহর দয়ায় তারা এরপর বিদ্যমাণ হয়েছে। আল্লাহর ইচ্ছায় তাদেরকে আবার হারিয়ে যেতে হবে। তাঁর ইচ্ছাতেই তারা আবার ফিরে আসবে। এরপর তাঁর ইচ্ছাতেই তাদের কেউ কেউ আবার হারাবে। আর কেউ কেউ চিরস্থায়ী বিদ্যমাণ থাকবে। এটাই মহাসত্য, যার অন্যথা হবার নয়।

সূরাঃ ২৬ শুয়ারা, ২০৮ নং ও ২০৯ নং আয়াতের অনুবাদ-

২১০।আমি এমন কোন জনপদ ধ্বংস করিনি, যার জন্য সতর্ককারী ছিল না।

২০৯। উপদেশ (যিকরা), আর আমি অত্যাচারী নই।

* উপদেশ হলো আল্লাহর নিযুক্ত সতর্ককারী খুঁজে নিয়ে তাদের কথামত নিজের ক্ষতি না হওয়া বিষয়ে সতর্ক থাকতে হবে। যেহেতু আল্লাহ অত্যাচারী নন সেহেতু তিনি সবার জন্য সতর্ককারী নিযুক্ত করেছেন বলে সাব্যস্ত হবে। কেউ সতর্ককারী খুঁজে না পেলে বুঝতে হবে সতর্ককারী খোঁজায় তার ত্রুটি ছিল। আর এটাই তার অপরাধ। আর এজন্যই তাকে শাস্তি ভোগ করতে হবে। কেউ যদি আল্লাহর শাস্তি দেখে তাঁকে জিজ্ঞাস করে তার অপরাধ কি? তখন আল্লাহ বলবেন, তিনি তাকে তাঁর শাস্তি থেকে বাঁচার জন্য সতর্ককারী নিযুক্ত করে ছিলেন, কিন্তু সে সতর্ককারী খোঁজার ত্রুটির কারণে আল্লাহর শাস্তি থেকে আত্মরক্ষা করতে পারেনি, এটাই তার অপরাধ।

সতর্ককারীর হিসেব হলো এটা পৃথিবীর সব ভৌগলিক এলাকায় থাকবে। সে ক্ষেত্রে হানাফী ছাড়া আর কোন সতর্ককারী দল সনাক্ত হয় না। পৃথিবীর সব এলাকায় হিন্দু নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় হিন্দু নেই। খ্রিস্টান নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় ইহুদী নেই, বোদ্ধ ও নাস্তিক আল্লাহর সতর্ককারী নয়। পৃথিবীর সব এলাকায় শিয়া নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় ইবাদী (খারেজী) নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় সালাফী নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় লা-মাযহাবী নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় শাফেঈ নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় মালেকী নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় হাম্বলী নেই। পৃথিবীর সব এলাকায় হানাফী আছে। সংগত কারণে আল্লাহর কথা অনুযায়ী আল্লাহ জালেম বা অত্যাচারী না হলে আল্লাহর সতর্ককারী দল শুধুই হানাফী। হানাফী ছাড়া এখন পৃথিবীতে আল্লাহর কোন সতর্ককারী দল নেই। সংগত কারণে আল্লাহর শাস্তি থেকে বাঁচতে হলে পৃথিবীর সব মানুষকে হানাফী আলেমদের উপদেশ গ্রহণ করতে হবে। আল্লাহর শাস্তি খেকে মানুষের বাঁচার বিষয়ে এছাড়া অন্য কোন বিকল্প পথ নেই।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




© All rights reserved © 2020 www.alo24news.com
Design BY NewsTheme